শনিবার, ২৬ মে ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
মিয়ানমারের ওপর অবরোধ আরোপের সুপারিশ কানাডিয়ান দূতের  » «   সালমান খানের সঙ্গে শাকিব খানের তুলনা করলেন পায়েল  » «   বিশ্বকাপ মিশনে নামার আগে মক্কায় পগবা  » «   সিটি নির্বাচনের প্রচারে এমপিরা কি অংশ নিতে পারবেন?  » «   তালিকা অনুযায়ী সবাইকে ধরা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   আমজাদ হোসেনের জার্মানি পতাকা এবার সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার  » «   ভক্তদের প্রশ্নের জবাব দিয়ে কক্সবাজার ছাড়লেন প্রিয়াঙ্কা  » «   জাপানে বন্ধুর ক্লাবই নতুন ঠিকানা ইনিয়েস্তার  » «   মুক্তামনির মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক  » «   ‘ভারত থেকে এক বালতি পানিও আনতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী’-রিজভী  » «   চৌদ্দগ্রামে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক বিক্রেতা নিহত  » «   জবিতে কোটা সংস্কার আন্দোলন নেতার ওপর হামলা  » «   নারীর মন-শরীর নিয়ন্ত্রণ করে পুরুষ আধিপত্য চায়: বিদ্যা  » «   আখাউড়ায় হচ্ছে ইন্টিগ্রেটেড চেকপোস্ট  » «   ২১ ঘণ্টা রোজা রাখছেন ৪ দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমান!  » «  

এ কেমন বর্বরতা?মায়ের হাত কেটে নিল ছেলে!



নিউজ ডেস্ক::ফরিদপুর সদর উপজেলার কৃষ্ণনগর এলাকায় সৎ মায়ের হাত কেটে নিয়েছে ছেলে। ভুক্তভোগী ওই নারীর নাম রেশমা বেগম (৩০)। তিনি ওই গ্রামের নুর ইসলাম শেখের দ্বিতীয় স্ত্রী। তার সৎ ছেলের নাম আল আমিন শেখ (২১)।

রবিবার (১৩ মে) উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের নরসিংহদিয়া গ্রামে এ নির্মম ঘটনাটি ঘটে।

রেশমা বেগম জানিয়েছেন, তিনি লেবাননে থাকাকালীন সময়ে মোবাইল ফোনে প্রতিবেশী নুর ইসলামের সঙ্গে তা কথা হতো। এরপর তাদের মধ্যে প্রণয়ের বা প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ৫ মাস আগে লেবানন থেকে দেশে ফেরার পর প্রতিবেশী নুর ইসলামের সঙ্গে আহত রেশমা বেগমের বিয়ে হয়।

কিন্তু বিয়ের পর থেকে নুর ইসলামের প্রথম স্ত্রী আকলিমা ও তার ছেলে আল আমিন ঝগড়া-বিবাদ লাগিয়ে রাখতেন তার সঙ্গে। এ ঘটনার জেরে রবিবার (১৩ মে) সকালে হঠাৎ করেই আল আমিন ধারালো দা দিয়ে তার দ্বিতীয় বা সৎ মা রেশমা বেগমের দুই হাত ও পায়ে এলোপাথারি কোপায়।

এ ঘটনার পরে গ্রামবাসীরা রেশমা বেগমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে স্বামী নুর ইসলাম জানান, তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করায় ছেলে ক্ষিপ্ত ছিল। তার দুই স্ত্রী আলাদা বাড়িতে থাকেন। ছেলে তার দ্বিতীয় মাকে মেনে নিতে না পেরে এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে জানান তিনি।

হাসপাতালের চিকিৎসক অনাদীরঞ্জন মণ্ডল বলেন, রেশমার বাম হাত কব্জির ওপর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ডান হাতেও গুরুতর জখম রয়েছে। এ ছাড়া দুই পা ও শরীরে কোপানো হয়েছে তাকে।

এ ব্যাপারে কোতোয়ালি থানার ওসি এএফএম নাসিম জানান, উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের নরসিংহদিয়া গ্রামে এ রকম ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। বিষয়টি খোঁজখবর নিয়ে দেখা হচ্ছে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: