বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে মুসলিমদের ওপর গাড়ি হামলা, আহত ৩  » «   সরকারি চাকরিজীবীদের ৫% সুদে গৃহঋণের আবেদন অক্টোবরে  » «   ভারতে তিন তালাককে শাস্তিযোগ্য অপরাধ ঘোষণা  » «   স্কুলছাত্রীকে পিটিয়ে অজ্ঞান করলেন শিক্ষক  » «   বোমা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, আর ইয়েমেনে সেই বোমা ফেলছে সৌদি  » «   রাখঢাক রাখছেন না পর্নো তারকা ডানিয়েল স্টর্মি  » «   কাবা শরীফের ভেতরে প্রবেশের সুযোগ পেলেন ইমরান  » «   মিয়ানমারে নিলামে উঠছে সুচির ভাস্কর্য  » «   এক দিনেই মিলবে পাসপোর্ট  » «   ওসমানী বিমানবন্দরে বিমানে তল্লাশি : ৪০টি স্বর্ণের বার উদ্ধার, চোরাচালানী আটক  » «   কেউ বলতে পারবে না, কারো গলা টিপে ধরেছি: প্রধানমন্ত্রী  » «   সৌদি থেকে ফিরলেন ৪২ নারী গৃহকর্মী  » «   সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টে আরও ২০ কোটি টাকা অনুদান দেবেন প্রধানমন্ত্রী  » «   ইয়েমেনে দুর্ভিক্ষের ঝুঁকিতে ৫২ লাখ শিশু  » «   ‘২৩ হাজার পোস্টমর্টেম বনাম মানসিক সঙ্কট’  » «  

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে১৩ জনের অভিযোগ আমলে নিয়েছেন ট্র্যাইব্যুনাল



নিউজ ডেস্ক::একাত্তরে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত বাগেরহাটের খান আশরাফসহ ১৩ আসামীর অভিযোগ আমলে নিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। মামলায় আসামিরা হলেন- বাগেরহাটের খাঁন আশরাফ আলী (৬৫), খাঁন আকরাম হোসেন (৬০), সূলতান আলী খাঁন (৬৮), রুস্তম আলী মোল্লা (৭০), ইদ্রিস আলী মোল্লা (৬৪), মকছেদ আলী দিদার (৮৩), শেখ মো. উকিল উদ্দিন (৬২), শেখ ইদ্রিস আলী (৬১), শেখ রফিকুল ইসলাম ওরফে বাবুল (৬৪), মো. মনিরুজ্জামান হাওলাদার (৬৯), মো. হাশেম আলী শেখ (৭৯), মো. আজাহার আলী শিকদার (৬৪), মো. মকবুল মোল্লা (৭৯), মো. আব্দুল আলী মোল্লা (৬৫)। আসামিদের মধ্যে আজহার আলী শিকদার বিএনপি সমর্থক। বাকি সবাই জামায়াত ইসলামীর সমর্থক।

আসামিদের বিরুদ্ধে ২০১৬ সালের ১৬ জুলাই গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেন। পরে একই বছর ২৬ খাঁন আকরাম হোসেন, ইদ্রিস আলী মোল্লা, শেখ মো. উকিল উদ্দিন এবং মকবুল মোল্লাকে গ্রেফতার করে ট্রাইব্যুনালে উপস্থাপন করা হয়। এই চার আসামি জেল হাজতে রয়েছেন। বাকি ১০ আসামি পলাতক। বুধবার ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল তাদের অভিযোগ আমলে নেন। আদালতে আজ রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন প্রসিকিউটর মো. মোখলেসুর রহমান বাদল ও সাবিনা ইয়াসমিন খান মুন্নি। অপরদিকে আসামিপক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট গাজী এমএইচ তামিম।

প্রসিকিউটর সাবিনা ইয়াসমিন খান মু্ন্নি জানান, এর আগে গত ২০এপ্রিল আজকের দিন নির্ধারন করে দেয়। আজ নির্ধারিত দিনে আসামীদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ
আমলে নিয়েছেন। তিনি জানান, এর আগে ২৮মার্চ আসামীদের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার বরাবর সাত অপরাধে ফরমাল চার্জ (আনুষ্ঠানিক অভিযোগ) দাখিল করা
হয় প্রসিকিউশন টিম থেকে। আজ নির্ধারিত দিনে অভিযোগ আমলেও নিয়েছেন আদালত।এর আগে ২০১৫ সালের ৪ জুন তদন্ত শুরু গত ২২ জানুয়ারি আসামীদের বিরুদ্ধে ৫৭ জন মূল ও ৩ জন জব্দ তালিকার সাক্ষীর জবানবন্দি নিয়ে চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রস্তুত করে তদন্ত সংস্থা। ওই দিনই আসামিদের বিরুদ্ধে ৭টি অভিযোগে ট্রাইব্যুনালের ৪৫ তম তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করে তা প্রসিকিউশনের কাছে জমা দেয়া হয়। আসামিদের বিরুদ্ধে বাগেরহাট জেলার কচুয়া ও মোড়লগঞ্জ থানার বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ আটক, নির্যাতন, অপহরণ, লুন্ঠন, অগ্নিসংযোগে ধ্বংস করা, ধর্ষণ ও হত্যার মতো ৭টি অভিযোগ আনা হয়েছে। অপরাধ তদন্ত করেন তদন্ত সংস্থার সদস্য মো. হেলাল উদ্দিন।

আসামিদের বিরুদ্ধে ৭ অভিযোগ : প্রুথম: বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ থানার চাপড়ী ও তেলিগাতীতে মুক্তিকামী মানুষদের উপর হামলা চালিয়ে ৪০/৫০টি বাড়ীর সমস্ত মালামাল লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ এবং ১০ জন নিরীহ মানুষকে গুলি করে হত্যা।

দ্বিতীয়: কচুয়া থানার হাজরাখালী ও বৈখালী রামনগরে হামলা চালিয়ে অবৈধভাবে ৪ জনকে আটক ও অপহরণ করে আবাদের খালের ব্রিজে হত্যার পর লাশ খালে ফেলে
দেওয়া হয়।

তৃতীয়: মোড়লগঞ্জ থানাধীন ঢুলিগাতী গ্রামে হামলা চালিয়ে দুজনকে আটক, নির্যাতন ও গুলি করে হত্যা।

চতুর্খ:কচুয়া থানার বিলকুল ও বিছট গ্রামে হামলা চালিয়ে ৪ জনকে কাঠালতলা ব্রিজে এনে নির্যাতন করার পর গুলি করে হত্যা করে লাশ নদীতে ফেলে দেওয়া হয়।

পঞ্চম: কচুয়া থানার বিলকুল গ্রাম হতে মুক্তিযোদ্ধা মুনসুর আলী নকীবকে ধরে নিয়ে মোড়লগঞ্জ থানার দৈবজ্ঞহাটির গরুর হাটির ব্রিজের উপরে নিয়ে নির্যাতন করার পর গুলি করে হত্যা।

ষষ্ঠ: কচুয়া থানার উদানখালী গ্রামে হামলা চালিয়ে উকিল উদ্দিন মাঝিকে আটক করে হত্যা করে এবং তাঁর মেয়ে তাসলিমাকে কচুয়া রাজাকার ক্যাম্পে নিয়ে আসে। তাসলিমাসহ ৪ (চার) জনকে দীর্ঘদিন আটকে রেখে পালাক্রমে ধর্ষণ করা হয়। পরে মুক্তিযোদ্ধারা রাজাকার ক্যাম্প তল্লাশী করে তাসলিমাকে উদ্ধার করে তাঁর বাড়ীতে পৌছে দেন।

সপ্তম: কচুয়া থানার গজালিয়া বাজারে হামলা করে শ্রীধাম কর্মকার হত্যা করে এবং তাঁর স্ত্রী কমলা রানী কর্মকারকে কচুয়া রাজাকার ক্যাম্পে নিয়ে আটক রাখে। কমলা রানী কর্মকারসহ কচুয়া রাজাকার ক্যাম্প ও আশে পাশ থেকে আটক করে আনা অন্য চারজনকে দীর্ঘদিন রাজাকার ক্যাম্পে আটকিয়ে রেখে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। প্রায় এক মাস নির্যাতনের পরকমলা রানী কর্মকার অসুস্থ হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এবং তিনি সেখান থেকে পালিয়ে যান।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: