শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
নুসরাত হত্যা : পুলিশের ভূমিকার বিচার বিভাগীয় তদন্ত চায় টিআইবি  » «   রাজীবের মৃত্যুর এক বছরেও মেলেনি ক্ষতিপূরণের কানাকড়ি  » «   দুর্যোগ সম্পর্কে সচেতনতামূলক প্রচারণা জরুরি : প্রধানমন্ত্রী  » «   বিএনপির ১৪ শীর্ষ নেতাদের জামিন বহাল  » «   একসঙ্গে পুড়ল তিন ভাইয়ের ‘স্বপ্ন’  » «   সিগারেট খেলে ফ্রিজ ফ্রি!  » «   রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়বে না : বাণিজ্যমন্ত্রী  » «   পাকিস্তানে নির্মিত হচ্ছে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম মসজিদ  » «   জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে ‘মুজিবনগর দিবস’ উদযাপন  » «   ব্রুনাই সফরে ৬ সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করবেন প্রধানমন্ত্রী  » «   বিশ্বের প্রভাবশালী ১০০ ব্যক্তির তালিকা প্রকাশ  » «   প্যারোলে মুক্তি ও এমপিদের শপথ গ্রহণ : যা ভাবছেন খালেদা জিয়া ও বিএনপি  » «   আপিলে হারলো যুক্তরাজ্য সরকার, কাটতে পারে বহু বাংলাদেশির ভিসা জটিলতা  » «   বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কলেজছাত্রীকে ছুরিকাঘাত  » «   লিবিয়ায় গৃহযুদ্ধ: নিরাপদ স্থানে সরানো হলো ৩০০ বাংলাদেশিকে  » «  

একটি নয়, পৃথিবীর চাঁদের সংখ্যা তিনটি!



তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক:: একটি নয়, পৃথিবীর চাঁদ আসলে তিনটি! তবে আমাদের চেনা চাঁদের মত নয় বাকি দু’টি। তারা তৈরি হয়েছে মহাজাগতিক ধুলো দিয়ে।

‘ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক’-এ প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, হাঙ্গেরির জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা প্রমাণ করেছেন অন্য দুই চাঁদের অস্তিত্ব। মান্থলি নোটিশেস অব রয়্যাল অ্যাস্ট্রনমিক্যাল সোসাইটিতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, সেই রহস্যময় চাঁদের মধ্যে একটির ছবি তাঁরা তুলতে সক্ষম হয়েছেন। সেই সময় ওই চাঁদটির দূরত্ব পৃথিবী থেকে আড়াই লক্ষ মাইল ছিল।

তবে এই প্রথম নয়, আজ থেকে বহু বছর আগেই এমন দাবি শোনা গিয়েছিল। ১৯৬১ সালে পৃথিবীর আরও চাঁদ থাকার কথা ঘোষণা করেছিলেন পোল্যান্ডের এক জ্যোতির্বিজ্ঞানী কোর্দিলিউস্কি।

জানা যাচ্ছে, ওই দু’টি চাঁদ পৃথিবীকে নির্দিষ্ট সময় অন্তর প্রদক্ষিণ করে চলেছে।এই চাঁদ বা ঘন ধুলোর মেঘদের বলা হয় কোর্ডলিউয়েস্কি মেঘ। এই দুই চাঁদ আকারে খুব বড় হলেও যেহেতু ধূলিকণা দিয়ে তৈরি, তাই তাদের ওজন সামান্য।

সূর্যের আলো পড়লে তাদের পিঠ থেকে আলো প্রতিফলিত হয়। কিন্তু খুবই ক্ষীণ সেই প্রতিফলন। সেই কারণেই আকাশের বুকে তাদের দেখতে পান না পৃথিবীবাসীরা। তারার আলো, আকাশের ঔজ্জ্বল্য ইত্যাদির ভিড়ে হারিয়ে যায় সেই সামান্য আলো। তবে এখনও পর্যন্ত তাদের একটিকেই দেখতে পাওয়া গিয়েছে। অন্যটির দেখাও শিগগির মিলবে, এমনটাই আশা বিজ্ঞানীদের।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: