মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
এমপি না হয়েও ল্যান্ড ক্রুজারে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেলেন মুহিত  » «   খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ বাড়ল এক বছর  » «   নবজাতককে মুখে নিয়ে কুকুরের টানাটনি, উদ্ধার করলেন এসআই  » «   নতুন শ্রমবাজার অনুসন্ধানে উদ্যোগী হতে হবে: প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী  » «   জনগণের সংকট উত্তরণে নতুন নির্বাচনের বিকল্প নেই: ফখরুল  » «   পানি বণ্টনের নতুন ফর্মুলা খুঁজছে বাংলাদেশ-ভারত: জয়শঙ্কর  » «   শেখ হাসিনার ছাত্রলীগে জামায়াতি আঁচড়!  » «   অবশেষে ক্ষমা চাইলেন জাকির নায়েক  » «   অপরাধীদের শাস্তি দ্রুত নিশ্চিত না করায় ধর্ষণ বাড়ছে: হাইকোর্ট  » «   সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে ‘স্পিড গান’  » «   কমলাপুর রেলওভার ব্রিজের ত্রুটির চিত্র তুলে ধরলেন ব্যারিস্টার সুমন  » «   জিন্দাবাজারে মিললো ২টি গোখরাসহ ৬ বিষধর সাপ  » «   কাশ্মীর ইস্যুতে আলোচনায় বসছেন ট্রাম্প- মোদী!  » «   মাত্র ১০০ মিটার দূরেই শত্রু  » «   অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে থাকবে সরকার: কাদের  » «  

এইডস ঝুঁকিতে সিলেট ও মৌলভীবাজার



নিউজ ডেস্ক:: সিলেট ও মৌলভীবাজারসহ দেশের ২৩টি জেলাকে এইডস ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে সরকার। এসব জেলাকে প্রাধান্য দিয়ে আক্রান্তদের দ্রুত শনাক্ত ও চিকিৎসার কথা জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। চলতি বছর নতুন করে ৮৬৫জন শনাক্ত হলেও এখন পর্যন্ত এইচআইভিতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর শিকার হয়েছে ৯২৪ জন। তবে চিকিৎসরা বলছেন, দ্রুত শনাক্ত করে চিকিৎসার আওতায় আনা গেলে এদের অধিকাংশকেই সুস্থ জীবনে ফেরানো সম্ভব।

জেলা গুলো হলো, ঢাকা, বরিশাল, পটুয়খালী, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, কুমিল্লা, চাঁদপুর, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ, খুলনা, বাগেরহাট, বগুড়া, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, দিনাজপুর, সিলেট ও মৌলভীবাজার।

অথচ ২৮ বছরেও বাংলাদেশে এইডস আক্রান্ত অর্ধেক জনগোষ্ঠীকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। এতে আক্রান্তরা অজান্তেই পরিবারের প্রিয়জনসহ সুস্থ মানুষকে আক্রান্ত করছে। তবে এসব সমস্যা সমাধানে ঢাকা ও ঢাকার বাইরে নতুন ৫টি আধুনিক চিকিৎসা কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। প্রয়োজনের তুলনায় চিকিৎসা কেন্দ্র অনেক কম বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

বেসরকারি গবেষণা বলছে, শিরায় মাদক গ্রহণকারী, নারী যৌন কর্মী, সমকামী ও হিজড়া জনগোষ্ঠীর মধ্যে এইডস সংক্রমণের হার সবচেয়ে বেশি। এদের মধ্যে ঢাকায় অবস্থানরত শিরায় মাদক গ্রহণকারীদের অবস্থান শীর্ষে। এর পরেই রয়েছে দেশে ফেরা প্রবাসী জনশক্তি। এইডস আক্রান্ত এক রোগী বলেন, ‘আমার তো এই রোগ ছিল না। আমি মেলামেশা করলাম, তারপর থেকেই এই রোগ হয়ে গেছে।’

জাতিসংঘের গবেষণা অনুযায়ী, বর্তমানে বাংলাদেশে সম্ভাব্য এইচআইভি আক্রান্তের সংখ্যা ১৩হাজার ২’শ। বিগত ৮৯ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ৫ হাজার ৫৮৬ জনকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। বাকিদের দ্রুত শনাক্ত করা না গেলে তারা ধীরে ধীরে সুস্থ জনগোষ্ঠীকে আক্রান্ত করার আশঙ্কা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের।

এইডস রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. সৈয়দ আহসান তৌহিদ বলেন, ‘বাংলাদেশের সব চিকিৎসককেই এই ব্যাপারে ট্রেনিংয়ের আওতায় আনতে হবে। যাতে তারা সম্ভাব্য রোগীদের শনাক্ত করে চিকিৎসার আওতায় আনতে পারে।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: