বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
দেশে ফিরছেন সাগরে ভাসা আরও ২৪ বাংলাদেশি  » «   অস্ট্রেলিয়ায় আগুনে পুড়ে ৩ ভাই-বোন নিহত  » «   অবশেষে বরখাস্ত ডিআইজি মিজান  » «   সরকারি চাকরিতে ডোপটেস্ট বাধ্যতামূলক করা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   ঘুষ নেয়ার ভিডিও করায় সাংবাদিককে পেটাল পুলিশ, ৪ পুলিশ সদস্য ক্লোজড  » «   শেষ বয়সে খেলোয়াড়দের সুরক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ‍নিতে ক্রীড়া মন্ত্রণালয়কে প্রধানমন্ত্রীর নির্দে  » «   বিএনপির নেতৃত্বে আসছেন তারেকের কন্যা!  » «   সরকারি নিয়োগের স্বাস্থ্য পরীক্ষা বেসরকারিতে!  » «   তিন বাংলাদেশিসহ চার নব্য জেএমবি জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করেছে কলকাতা পুলিশ  » «   ‘শহীদ’ জিয়াকে নিয়ে সংসদে মমতাজের হাস্যরস  » «   বগুড়া-৬ উপনির্বাচনে বিপুল ব্যবধানে বিএনপি প্রার্থীর জয়  » «   প্রথমবার সিলেট-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রুটে উড়বে ইউএস-বাংলা  » «   ভূমিকম্পে কেঁপে উঠলো ইন্দোনেশিয়ায়-জাপান-অস্ট্রেলিয়া  » «   ভোটকেন্দ্রেই ঘুমিয়ে পড়লেন কর্মকর্তা  » «   ‘জয় শ্রীরাম’ না বলায় পিটিয়ে মুসলিম যুবককে হত্যা  » «  

উপহারের বদলে বিয়ের কার্ডে মোদিকে ভোট দেওয়ার আবেদন!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: বিয়ের কার্ড দিয়ে অতিথিদের আমন্ত্রণ জানানোর প্রথা বেশ পুরানো।বর্তমানে ভার্চুয়ালি বিয়ের কার্ড পাঠালেও,ঘনিষ্ঠ বন্ধু আর আত্মীয়দের নিজেরা গিয়েই সেই কার্ড দিয়ে আসেন। আর সেই বিয়ের কার্ডে আবার অনেকে উল্লেখ করে দেয় যে উপহার নিয়ে আসার কোনও প্রয়োজন নেই। সেক্ষেত্রে অতিথির আগমনটাই থাকে মুখ্য।

কিন্তু বিয়ের কার্ডের মাধ্যমে ভোটের প্রচার, হয়ত কেউই এরকম উপহারের দাবি করেননি কোনোদিন। তবে ভারতের গুজরাটের দু’‌টি বিয়ের কার্ড নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে সমগ্র দেশ ভারতজুড়ে। কারণ সেখানে উল্লেখ করে দেওয়া হয়েছে উপহারের কথা। আর সেই উপহারটিও বেশ চমকপ্রদ এবং খরচহীন। কারণ সেই বিয়ের কার্ডে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে ভোট দেওয়ার আবেদন করা হয়েছে আমন্ত্রিতদের কাছে।

অভিনব এই বিয়ের কার্ড এবং অবশ্যই ভোটের প্রচার ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা নিয়ে আলোচনা শুরু হয়ে গেছে রাজনৈতিক মহলে। এই বিয়ে দু’‌টির একটি হবে চলতি মাসের ১১ তারিখে। অপরটি হবে পরের মাসের ১০ তারিখে।

যদিও এই ধরনের ঘটনা নতুন কিছু নয়। এর আগেও দক্ষিণ ভারতের এক শহরে এই ধরনের কার্ড দেখা গিয়েছিল। সেখানে বিয়ের কার্ডে বিজেপিকে ভোট দিয়ে জেতানোর আবেদন করা হয়েছিল। এছাড়াও অন্য একটি ঘটনাও ঘটেছে বিয়ের কার্ড নিয়ে। সেখানেও অবশ্য জড়িত রয়েছেন প্রধানমন্রী নরেন্দ্র মোদি।

বিয়ের কার্ডে মোদির স্বচ্ছ ভারত অভিযানের প্রচার চালানো হয়েছিল। সেই কার্ডটি টুইট করে পাত্রীর ভাই প্রধানমন্ত্রীকে ট্যাগ করে দিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে সেই টুইট শেয়ারও করা হয়েছিল। আরও বড় বিষয় হচ্ছে সেই পাত্রীর ভাইকে টুইটারে ফলো করাও শুরু করেছিলেন মোদি।‌‌

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: