মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
উপজেলা নির্বাচনের তৃতীয় ধাপ থেকে ইভিএম: ইসি সচিব  » «   হজ পালনে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবি হিজড়াদের  » «   সব বাধা উপেক্ষা করে গণশুনানি করবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট  » «   অভিজিৎ হত্যা: অব্যাহতি পাচ্ছেন সাতজন, আসামি ছয়  » «   অনুমোদিত ৩টি ব্যাংক সম্পর্কে তেমন কিছু জানেন না অর্থমন্ত্রী  » «   ডাস্টবিনে নেমে ১৫০০ শিক্ষার্থীকে বাঁচানোর আহ্বান  » «   একাদশ সংসদের এমপিদের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ  » «   শামীমাকে যা বুঝিয়ে সিরিয়ায় নিয়ে গিয়েছিল আইএস  » «   নিজেই গাড়ি চালিয়ে যুবরাজকে বাসভবনে নিয়ে গেলেন ইমরান খান  » «   আরব আমিরাত ও বাংলাদেশর মধ্যে ৪টি সমঝোতা স্মারক সই  » «   সংঘর্ষ চলছে, পুলওয়ামা হামলার মূল হোতা নিহত  » «   এক দিন বাড়ল দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা, আখেরি মোনাজাত মঙ্গলবার  » «   শুধুমাত্র আইন দিয়ে দুর্নীতি দমন করা যায় না: আইনমন্ত্রী  » «   জামায়াতের সবারই রাজ্জাকের মতো ভুল ভাঙা উচিত: ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ  » «   সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জা‌নি‌য়ে মোদিকে শেখ হাসিনার বার্তা  » «  

উইঘুর মুসলমানদের আটকে রাখার ক্যাম্পগুলোকে বৈধতা দিচ্ছে চীন



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: আন্তর্জাতিক উদ্বেগ সত্ত্বেও চীনের শিনজিয়াং প্রদেশ কর্তৃপক্ষ দেশটির উইঘুর মুসলমানদের বন্দি রাখা ক্যাম্পগুলোকে বৈধতা দিয়েছে।চীন যেটিকে কট্টরপন্থার প্রসার থামাতে বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ কর্মসূচি হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।উগ্রপন্থাবিরোধী মতাদর্শের প্রশিক্ষণ দিতে বৃত্তিমূলক এসব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রকে বৈধতা দিতে এবং চিন্তার পরিবর্তন আনতে আচরণগত ও মানসিক সংশোধনের জন্য এসব কেন্দ্র গঠন করা হয়েছে বলে দাবি চীনের।

মান্দারিন ভাষায় এসব প্রশিক্ষণ ও রূপান্তর কার্যক্রম চলবে বলে নতুন আইনে বলা হয়েছে।এর মাধ্যমে দেশটির কর্তৃপক্ষ এতদিনে স্বীকার করল বহু উইঘুর মুসলিমকে বন্দিশিবিরে নিয়ে রাখা হয়েছে।মানবাধিকারের ওপর সম্প্রতি এক বৈঠকে উপস্থিত চীনা কর্মকর্তারা বলছেন,ধর্মীয় উগ্রবাদের কবলে পড়া উইঘুরদের নতুন করে শিক্ষা ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।তবে কীভাবে তা করা হচ্ছে তা চীনা কর্মকর্তারা ভেঙে বলছেন না।

কিন্তু মানবাধিকার সংস্থাগুলো দাবি করছে,এসব শিবিরে প্রেসিডেন্ট শি জিন-পিংয়ের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে উইঘুরদের শপথ নিতে বাধ্য করা হচ্ছে।একই সঙ্গে তাদের ধর্মীয় বিশ্বাস নিয়ে আত্মসমালোচনা করানো হচ্ছে।শিনজিয়াংয়ে গত কয়েক বছর ধরে অব্যাহত সহিংসতা চলছে।চীন তার জন্য বিচ্ছিন্নতাবাদী ইসলামী সন্ত্রাসীদের দায়ী করে।দেশটির সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল যে,তারা বিপুলসংখ্যক উইঘুর মুসলমানকে কতগুলো বন্দিশিবিরের ভেতরে আটকে রেখেছে।

গত আগস্টে জাতিসংঘের একটি কমিটি জানতে পেরেছে যে,১০ লাখের মতো উইঘুর মুসলিমকে পশ্চিমাঞ্চলীয় শিনজিয়াং অঞ্চলে কয়েকটি শিবিরে বন্দি করে রাখা হয়েছে।চীন শিনজিয়াংয়ে কি করছে,নতুন এ আইনের মাধ্যমে এই প্রথম তার একটি ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

আইনে বলা হয়েছে-যেসব আচরণের কারণে বন্দিশিবিরে আটক করা হতে পারে,তার মধ্যে রয়েছে-খাবার ছাড়া অন্য হালাল পণ্য ব্যবহার,রাষ্ট্রীয় টিভি দেখতে অস্বীকার করা, রাষ্ট্রীয় রেডিও শুনতে অস্বীকার করা,রাষ্ট্রীয় শিক্ষাব্যবস্থা থেকে বাচ্চাদের দূরে রাখা।চীন বলছে,এসব বন্দিশিবিরে চীনা ভাষা শেখানো হবে,চীনের আইন শেখানো হবে এবং বিভিন্ন কারিগরি প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: