শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বিএনপির বিরুদ্ধে গায়েবি মামলার প্রমাণ নেই : আমু  » «   অংশ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য সহযোগিতা করতে প্রস্তুত ইইউ  » «   কমলগঞ্জে ট্রাক চাপায় তরুণী নিহত,চালক পালাতক  » «   বি. চৌধুরীর চায়ের দাওয়াতে যাচ্ছে ন্যাপ–এনডিপি  » «   নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে জাতীয় নির্বাচনের তফসিল: ইসি সচিব  » «   ঈশ্বর, মৃত্যু-পরবর্তী জীবন ও স্বর্গ নিয়ে যা ভাবতেন স্টিফেন হকিং  » «   আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক  » «   সাম্প্রদায়িক সম্প্রতির দৃষ্টান্ত: এক উঠোনে মসজিদ-মন্দির  » «   খাশোগি হত্যা: যুক্তরাষ্ট্রকে সাড়ে ৭ হাজার কোটি টাকা দিল সৌদি  » «   দুর্গাপূজা যেভাবে হলো হিন্দুদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব  » «   সিলেটে ফোনে কথা বলা অবস্থায় যুবকের হঠাৎ মৃত্যু  » «   ইরান কখনো পরমাণু বোমা বানাবে না: রুহানি  » «   সিলেটে সমাবেশের অনুমতি পেয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট  » «   বাংলাদেশে আরো সৌদি বিনিয়োগ চান প্রধানমন্ত্রী  » «   কানাডায় প্রকাশ্যে গাঁজা বিক্রি শুরু, ক্রেতাদের ভিড়  » «  

উইঘুর মুসলমানদের আটকে রাখার ক্যাম্পগুলোকে বৈধতা দিচ্ছে চীন



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: আন্তর্জাতিক উদ্বেগ সত্ত্বেও চীনের শিনজিয়াং প্রদেশ কর্তৃপক্ষ দেশটির উইঘুর মুসলমানদের বন্দি রাখা ক্যাম্পগুলোকে বৈধতা দিয়েছে।চীন যেটিকে কট্টরপন্থার প্রসার থামাতে বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ কর্মসূচি হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।উগ্রপন্থাবিরোধী মতাদর্শের প্রশিক্ষণ দিতে বৃত্তিমূলক এসব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রকে বৈধতা দিতে এবং চিন্তার পরিবর্তন আনতে আচরণগত ও মানসিক সংশোধনের জন্য এসব কেন্দ্র গঠন করা হয়েছে বলে দাবি চীনের।

মান্দারিন ভাষায় এসব প্রশিক্ষণ ও রূপান্তর কার্যক্রম চলবে বলে নতুন আইনে বলা হয়েছে।এর মাধ্যমে দেশটির কর্তৃপক্ষ এতদিনে স্বীকার করল বহু উইঘুর মুসলিমকে বন্দিশিবিরে নিয়ে রাখা হয়েছে।মানবাধিকারের ওপর সম্প্রতি এক বৈঠকে উপস্থিত চীনা কর্মকর্তারা বলছেন,ধর্মীয় উগ্রবাদের কবলে পড়া উইঘুরদের নতুন করে শিক্ষা ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।তবে কীভাবে তা করা হচ্ছে তা চীনা কর্মকর্তারা ভেঙে বলছেন না।

কিন্তু মানবাধিকার সংস্থাগুলো দাবি করছে,এসব শিবিরে প্রেসিডেন্ট শি জিন-পিংয়ের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে উইঘুরদের শপথ নিতে বাধ্য করা হচ্ছে।একই সঙ্গে তাদের ধর্মীয় বিশ্বাস নিয়ে আত্মসমালোচনা করানো হচ্ছে।শিনজিয়াংয়ে গত কয়েক বছর ধরে অব্যাহত সহিংসতা চলছে।চীন তার জন্য বিচ্ছিন্নতাবাদী ইসলামী সন্ত্রাসীদের দায়ী করে।দেশটির সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল যে,তারা বিপুলসংখ্যক উইঘুর মুসলমানকে কতগুলো বন্দিশিবিরের ভেতরে আটকে রেখেছে।

গত আগস্টে জাতিসংঘের একটি কমিটি জানতে পেরেছে যে,১০ লাখের মতো উইঘুর মুসলিমকে পশ্চিমাঞ্চলীয় শিনজিয়াং অঞ্চলে কয়েকটি শিবিরে বন্দি করে রাখা হয়েছে।চীন শিনজিয়াংয়ে কি করছে,নতুন এ আইনের মাধ্যমে এই প্রথম তার একটি ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

আইনে বলা হয়েছে-যেসব আচরণের কারণে বন্দিশিবিরে আটক করা হতে পারে,তার মধ্যে রয়েছে-খাবার ছাড়া অন্য হালাল পণ্য ব্যবহার,রাষ্ট্রীয় টিভি দেখতে অস্বীকার করা, রাষ্ট্রীয় রেডিও শুনতে অস্বীকার করা,রাষ্ট্রীয় শিক্ষাব্যবস্থা থেকে বাচ্চাদের দূরে রাখা।চীন বলছে,এসব বন্দিশিবিরে চীনা ভাষা শেখানো হবে,চীনের আইন শেখানো হবে এবং বিভিন্ন কারিগরি প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: