মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৭ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিলেটে ডাক্তারদের প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ, ফার্মেসিতেই চিকিৎসা  » «   ৯ এপ্রিল পবিত্র শবে বরাত  » «   এবার স্পেনও ছাড়ালো চীনকে, ২৪ ঘণ্টায় ৭৩৮ মৃত্যু  » «   সিলেট বিভাগে বৃহস্পতিবার থেকে গণপরিবহন বন্ধ  » «   করোনা মোকাবিলায় দেশে দেশে লকডাউন  » «   খালেদা জিয়ার মুক্তি, করোনা বদলে দিচ্ছে রাজনীতি  » «   খালেদার মুক্তির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাল যুক্তরাষ্ট্র  » «   খালেদা জিয়ার মুক্তিতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক দেখছেন ড. কামাল  » «   করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে গ্রিসে লকডাউন  » «   বান্দরবানের ৩ উপজেলা লকডাউন  » «   ইতালিতে একদিনে ৭৪৩ জনের মৃত্যু  » «   ফ্রান্সে ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৮৬ মৃত্যু  » «   নিউইয়র্কে করোনায় আক্রান্ত ২০ হাজার ছাড়াল  » «   সাধারণ ছুটিতে চালু থাকবে ব্যাংক  » «   করোনাভাইরাস: উৎকণ্ঠিত সিলেট, উদ্বিগ্ন মানুষ  » «  

ই-পাসপোর্ট ও এমআরপির কার্যক্রম স্থগিত



করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা জারির প্রেক্ষাপটে ই-পাসপোর্ট ও মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের (এমআরপি) বায়োমেট্রিক কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।

গত রোববার (২২ মার্চ) থেকে এই কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল সাকিল আহমেদ বিষয়টি এ প্রতিবেদ্ককে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ই-পাসপোর্ট ও এমআরপি কার্যক্রমে ফিঙ্গারপ্রিন্ট রিডারে বারবার আঙ্গুল দিতে হয়, সেখানে হ্যান্ডস গ্লাভস নয়, সরাসরি হাত দিয়ে কাজ করতে হয়। যেটা অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ মনে হচ্ছে। তাছাড়া ফিঙ্গারপ্রিন্ট রিডার বারবার মুছতেও হয়। এতে যেমন করোনার ঝুঁকি রয়েছে, তেমনি ফিঙ্গারপ্রিন্ট রিডার নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এসব কিছু বিবেচনায় রেখেই এমআরপি বায়োমেট্রিক কার্যক্রম বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বায়োমেট্রিক কার্যক্রম আবারও শুরু হবে।

মেজর জেনারেল সাকিল আহমেদ জানান, বায়োমেট্রিক নেয়া বন্ধ থাকলেও ই-পাসপোর্টের জন্য অনলাইনে আবেদন করা যাবে। তবে বায়োমেট্রিকের জন্য অ্যাপয়েনমেন্ট পেতে সময় লেগে যাবে।

গত ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের উহানে প্রথম শনাক্ত হওয়া করোনাভাইরাস এখন বৈশ্বিক মহামারি। এতে সারাবিশ্বে এখন পর্যন্ত প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ১৪ হাজার ৬৯৮ জন। এছাড়া চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন প্রায় ৯৯ হাজার ১৩ জন।

বাংলাদেশে এ ভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয়েছে গত ৮ মার্চ। এরপর দিন দিন এ ভাইরাসে সংক্রমণের সংখ্যা বেড়েছে। সবশেষ সরকারি হিসাবে, দেশে এখন পর্যন্ত ২৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন, মারা গেছেন দুজন।

করোনার বিস্তাররোধে এরই মধ্যে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে সভা-সমাবেশ ও গণজমায়েতের ওপর। চারটি দেশ ও অঞ্চল ছাড়া সব দেশ থেকেই যাত্রী আসা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। মুলতবি করা হয়েছে জামিন ও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়াদি ছাড়া নিম্ন আদালতের বিচারিক কাজ। এমনকি মাদারীপুরের শিবচর উপজেলাকে লকডাউনও ঘোষণা করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: