শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
নিজেদের বিমান বাহিনী থেকে সুরক্ষা পেতেই এরদোগানের এস-৪০০ ক্রয়!  » «   জাপানে অ্যানিমেশন স্টুডিওতে অগ্নিসংযোগ, নিহত ১২  » «   খাদ্য ঘাটতি পূরণ করেছি, এখন লক্ষ্য পুষ্টি: প্রধানমন্ত্রী  » «   রিফাত হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে মিন্নি  » «   বাংলাদেশের পতাকার আদলে অন্তর্বাস বিক্রি করছে অ্যামাজন  » «   রিফাত হত্যাকাণ্ড: এবার রিশান ফরাজীও গ্রেফতার  » «   বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি কেলেঙ্কারি: সিস্টেম লস নয় দুর্নীতি  » «   বন্যার কারণে জাতীয় ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পরীক্ষা স্থগিত  » «   হঠাৎ কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে শক্ত পদক্ষেপ, মাঠে নামছে র‌্যাব  » «   ধসে পড়া ভবনে মিললো বাবা-ছেলের মরদেহ  » «   ইসরাইলের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের তীব্র নিন্দা  » «   ‘নয়ন বন্ডের বাড়িতে বসেই স্বামীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন মিন্নি’  » «   সিলেটের ২ জনসহ দেশসেরা ১২ শিক্ষার্থীকে পুরস্কার দিলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   বেনাপোল ও বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   উপজেলা নির্বাচন: সিলেটে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের বহিষ্কারের তালিকা  » «  

ইসলামিক পর্যটন গড়তে বেসরকারি খাতকে উৎসাহ দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী



নিউজ ডেস্ক:: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ইসলামিক পর্যটনকে বাণিজ্য হিসেবে গড়ে তুলতে হলে বেসরকারি খাতকে উৎসাহ প্রদান করতে হবে। এ ছাড়া ভিসা সহজীকরণ করা, ব্র্যান্ডিং করতে হবে। হালাল খাদ্য ইসলামিক পর্যটকদের আকৃষ্ট করবে।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেল ঢাকায় ‘ঢাকা ইজ দ্য ওআইসি সিটি ট্যুরিজম ২০১৯’ দু’দিনব্যাপী ওআইসির অফিসিয়াল সেলিব্রেশন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সারা বিশ্বে পর্যটন একটি বর্ধনশীল খাত। এ ব্যাপারে আমাদের পিছিয়ে থাকা চলবে না। এ খাতকে সমৃদ্ধ করতে কাজ করতে হবে। বাংলাদেশকে আকৃষ্ট করে তুলতে হবে। আমাদের যেসব ঐতিহ্য এবং কালচার আছে সেগুলোকে আরও ভালোভাবে উপস্থাপন করে পর্যটকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে হবে। আমাদের যা আছে পৃথিবীর অনেক দেশেই নেই।’

অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন বা ওআইসি প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা একসঙ্গে থেকে নিজ নিজ দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে কাজ করব। সবার সঙ্গে সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে কাজ করব। কারো সঙ্গে কোনো সমস্যা হলে নিজেরাই সমাধান করব।

তিনি বলেন, ‘ইসলামিক পর্যটনকে বাণিজ্য হিসেবে গড়ে তুলতে হলে বেসরকারি খাতকে উৎসাহ প্রদান করতে হবে। এ ছাড়া ভিসা সহজীকরণ করা, ব্র্যান্ডিং করতে হবে। হালাল খাদ্য ইসলামিক পর্যটকদের আকৃষ্ট করবে। পর্যটন খাতের উন্নয়নের জন্য আমরা ২০১০ সালে নীতিমালা প্রণয়ন করেছি। সারাদেশে বিভিন্ন অবকাঠামো গড়ে তুলছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের ঢাকায় আছে আহসান মঞ্জিল, লালবাগের কেল্লা, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, হোসনি দালান, আমাদের মুসলিম, জামদানি, ঢাকার বাকরখানি, পুরান ঢাকার রোজ গার্ডেন, বায়তুল মোকাররম মসজিদ, ইকোপার্ক, সাফারি পার্ক, ইত্যাদি। পর্যটকরা বাংলাদেশে এসে এগুলো উপভোগ করতে পারেন।

কক্সবাজার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পরিণত করা হয়েছে। এছাড়া সেখানে ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ফুটবল স্টেডিয়াম করা হয়েছে। প্রয়োজনে পর্যটকদের জন্য সেখানে আরও ভালো স্থাপনা নির্মাণ করা হবে। যে স্থাপনায় থাকবে আন্তর্জাতিকমানের হল রুম। কক্সবাজারের মতো এত সুন্দর সি বিচ পুথিবীর কোথাও নেই।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মহিবুল হক। সভাপতিত্ব করেন বেসরকারি বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী। বক্তব্য দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, বেসরকারি বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ওবায়দুল মুক্তাদির এবং ওআইসির সহকারী মহাসচিব মুসা ইলিকায়া প্রমুখ।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: