বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বৃহস্পতিবার মুক্তি পাচ্ছেন খালেদা?  » «   ভাষা শহীদদের প্রতি চলচ্চিত্র তারকাদের শ্রদ্ধা নিবেদন  » «   বিএনপিকে আ’লীগ নেতার হুশিয়ারি  » «   রেলের কাজে ৩৬ কোটি ডলার দেবে এডিবি  » «   বোলারের মাথায় বল লেগে ছক্কা!  » «   একুশের চেতনায় দেশকে গড়ে তোলাই সরকারের লক্ষ্য  » «   প্রলোভন দেখিয়ে ছাত্রীকে ধর্ষণ করল ৫৫ বছরের গৃহশিক্ষক  » «   টাইগারদের ভরাডুবির নেপথ্যের কারণ  » «   অস্ট্রেলিয়ার আনন্দ মাটি !  » «   উকুন নিয়ে যন্ত্রণা, জেনে নিন সমাধান  » «   খালেদার পক্ষে অর্ধশতাধিক আইনজীবী  » «   মাত্র সাত দিনে পেটের মেদ উধাও!  » «   ভাষা শহীদদের প্রতি নজিপুর প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধাঞ্জলি  » «   প্রধান বিচারপতি ‘উচ্চ আদালতে বাংলা ব্যবহারের আরও বেশি উদ্যোগ নেব’  » «   অবশেষে মাহিকে নিয়ে শুটিংয়ে ডি এ তায়েব  » «  

ইতালিতে ধর্ষকদের হাত থেকে তরুণীকে বাঁচালেন এক বাংলাদেশি



প্রবাস ডেস্ক:: রাত সাড়ে ১১টার দিকে ইতালির ফ্লোরেন্সের শহরের এক রাস্তার উপর দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেনে এক তরুণী। এ সময় ২৫ জন মাতাল মিলে ওই তরুণীকে ঘিরে ধরেন। ওই তরুণীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের চেষ্টা করেন তারা। আর সেই দৃশ্য বাংলাদেশি এক ফুল বিক্রেতা দেখতে পেয়ে একাই ওই তরুণীকে ২৫ জন মাতালের হাত থেকে রক্ষা করেন।
প্রবাসী বাংলাদেশি ওই ফুল বিক্রেতার নাম আলমগীর হোসেন বলে জানা গেছে। বাংলাদেশি এই লোকের সাহসিকতার কথা এখন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলোতে ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছে।
জানা গেছে, গিয়া গুরানত্তা নামের ওই তরুণী একজন ফটোগ্রাফার। ওই তরুণী জানান, হঠাৎ ২৫ জনের মতো মাতাল ব্যক্তি রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় তাকে ঘিরে ধরেন। তারা ওই তরুণীকে তাদের সাথে খারাপ কাজ করার প্রস্তাব দেয়। ওই তরুণী প্রস্তাবে রাজি না হলে। মাতাল লোকগুলো খেপে যায়। তারা ওই তরুণীকে গালিগালাজ ও অশ্লীল কথা বলতে থাকেন। এ সময় ধর্ষণ করার জন্য ওই তরুণীকে তারা নির্জন স্থানে নিয়ে যেতে চেষ্টা করে। ঠিক ওই সময়ই বাংলাদেশি ফুল বিক্রেতা আলমগীর হোসেন দেখতে পান তাদেরকে।
আলমগীর হোসেন তাদের সামনে এগিয়ে যান এবং পরিস্থিতি বুঝতে পেরে ওই মাতালের দলকে ধাওয়া করেন। আর একাই ওই তরুণীকে তাদের হাত থেকে রক্ষা করেন।
গিয়া গুরানত্তাকে এরপর একটি নিরাপদ স্থানে নিয়ে যান এবং তার বন্ধুতের ফোন দেন। পরে বন্ধুরা তাকে এসে নিয়ে যায়।
ওই তরুণী সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে জানান, কোনো স্বার্থ ছাড়াই ওই লোক আমাকে বাঁচিয়েছেন। আলমগীর হোসেন একজন নিষ্পাপ ব্যাক্তি। সে কোনো দিন আলমগীর হোসেনকে ভুলতে পারবেন না বলেও জানান।
জানা গেছে, ওই তরুণীকে তাদের বন্ধুর হাতে তুলে দেওয়ার সময় আলমগীর ওই তরুণীকে একটি ফুলও উপহার দেন। বাংলাদেশি প্রবাসী আলমগীর ফুল বিক্রেতা হিসেবে ২০০৫ সাল থেকে ইতালিতে বসবাস করছেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: