রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিডরে নিখোঁজ শহিদুল বাড়ি ফিরলেন ১১ বছর পর!  » «   ভাওতাবাজির জন্য সরকারকে গোল্ড মেডেল দেওয়া উচিৎ: ড. কামাল  » «   দিল্লির লাল কেল্লা দখলের হুমকি পাকিস্তানের!  » «   সত্য বলায় এসকে সিনহাকে জোর করে বিদেশ পাঠানো হয়েছে: মির্জা ফখরুল  » «   নির্বাচনী কর্মকর্তারা পক্ষপাতিত্ব করলে শাস্তি হবে: নির্বাচন কমিশনার  » «   গোলান মালভূমিতে সিরিয়ান মালিকানা জাতিসংঘে অনুমোদন  » «   শ্রীলংকার পার্লামেন্টে স্পিকারের চেয়ার দখল, সংঘর্ষে আহত একাধিক এমপি  » «   আজ মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী  » «   কে হবেন প্রধানমন্ত্রী: উত্তরে যা বললেন ড. কামাল  » «   ক্যালিফোর্নিয়া দাবানল: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫৯  » «   রোহিঙ্গারা স্লোগান দিচ্ছে ‘ন যাইয়ুম, ন যাইয়ুম’  » «   প্রাথমিকের সমাপনী পরীক্ষায় থাকছে না এমসিকিউ  » «   ঐক্যফ্রন্টের সব দলের প্রতীক ধানের শীষ  » «   চিকিৎসা নিয়ে খালেদার রিটের আদেশ রোববার  » «   বিএনপি জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী হবেন খালেদা জিয়া  » «  

ইইউ ছাড়লে ভাঙনের মুখে পড়বে যুক্তরাজ্য’



full_1712032325_1465625454নিউজ ডেস্ক: দুই আয়ারল্যান্ডের মানুষকে বিচ্ছিন্ন করে দিলে আইরিশ আন্দোলনের পুরোনো ঘা আবার দগদগে হয়ে উঠতে পারে। আর এ কারণেই ইইউ ছাড়লে যুক্তরাজ্য ভাঙনের মুখে পড়বে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন দেশটির সাবেক দুই প্রধানমন্ত্রী—লেবার দলের টনি ব্লেয়ার এবং কনজারভেটিভ দলের জন মেজর।

গত বৃহস্পতিবার নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের আলস্টার ইউনিভার্সিটিতে এক মঞ্চে দাঁড়িয়ে ইইউতে থাকার পক্ষে তারা নানা যুক্তি তুলে ধরেন। বলেন, ইইউ ছেড়ে এলে স্কটল্যান্ডও স্বাধীনতার প্রশ্নে আবার গণভোট চাইতে পারে। প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে স্কটল্যান্ডের স্বাধীনতার প্রশ্নে গণভোট অনুষ্ঠিত হয়। মাত্র ৫ শতাংশ ভোটের ব্যবধানে থেমে যায় স্বাধীনতার দাবি। স্কটল্যান্ডের ক্ষমতাসীন স্কটিশ ন্যাশনালিস্ট পার্টির (এসএনপি) নেতারা বলছেন, যুক্তরাজ্য ইইউ ছাড়লে স্কটল্যান্ড আবার স্বাধীনতার প্রশ্নে গণভোট চাইতে পারে।

আয়ারল্যান্ড দ্বিখণ্ডিত হয়ে রিপাবলিক অব আয়ারল্যান্ডের জন্ম হয়। নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড যুক্তরাজ্যের অংশ হিসেবেই আছে। কিন্তু ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) উন্মুক্ত সীমান্তনীতির কারণে বিভক্ত আয়ারল্যান্ডের মানুষের সম্পর্কে বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি রাষ্ট্রীয় সীমারেখা। এর ফলে পরিস্থিতিও শান্ত। তবে যুক্তরাজ্য ইইউ ছেড়ে এলে বন্ধ করে দিতে হবে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড সীমান্ত।

২৩ জুন ইইউতে থাকা না-থাকা প্রশ্নে যুক্তরাজ্যে গণভোট অনুষ্ঠিত হবে। দেশটির প্রধান রাজনৈতিক দলের নেতারা ইইউর পক্ষে প্রচার চালালেও দলগুলোর অনেক এমপি, এমনকি সরকারের বেশ কয়েকজন মন্ত্রী ইইউর বিপক্ষে প্রচারে নেমেছেন।

বৃহস্পতিবার আইটিভির সরাসরি বিতর্কে ইইউবিরোধী মন্ত্রী বরিস জনসনের বক্তব্যকে চ্যালেঞ্জ করে স্কটল্যান্ডের ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টারজিয়ন বলেন, যুক্তরাজ্য সদস্য ফি বাবদ প্রতি সপ্তাহে ৩৫০ মিলিয়ন পাউন্ড দেয় বলে যে দাবি করা হচ্ছে, তা ডাহা মিথ্যা। যুক্তরাজ্য ইইউতে যে অর্থ দেয় তা মাথাপিছু এক পাউন্ডেরও কম। এর বিনিময়ে যুক্তরাজ্যের মানুষ ইউরোপজুড়ে অবাধ চলাচল করতে পারে। ইইউর মুক্ত বাজারের সুবিধা ভোগ করে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: