মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
হবিগঞ্জে ছেলেধরা সন্দেহে তিনজনকে গণপিটুনি  » «   গণপিটুনিতে রেনু নিহতের ঘটনায় আটক ৩ জন রিমান্ডে  » «   ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে মামলা  » «   ফের জাতীয় সংলাপের আহ্বান ড. কামালের  » «   জবানবন্দি প্রত্যাহার ও চিকিৎসা- মিন্নির পক্ষে দুই আবেদনই নামঞ্জুর  » «   উ. কোরিয়ায় নির্বাচন: ভোট পড়েছে ৯৯.৯৮ শতাংশ  » «   এইডস ঝুঁকিতে সিলেট ও মৌলভীবাজার  » «   ঈদের আগেই সরকারি ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষার ফল  » «   বিমানের ৪৫ হাজার টিকিট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে হরিলুট  » «   মিন্নি নয়, রিফাত হত্যার নেপথ্যে চেয়ারম্যানের স্ত্রী?  » «   পাকিস্তানে নারী আত্মঘাতীর বিস্ফোরণে ছয় পুলিশসহ নিহত ৯  » «   সাইকেল চালিয়ে হজ করতে যাচ্ছেন ৮ ব্রিটিশ মুসলিম  » «   প্রিয়া সাহার মিথ্যা বক্তব্য মার্কিন আধিপত্য বিস্তারের ষড়যন্ত্র : জয়  » «   বাংলাদেশের পোশাক খাতে রপ্তানি বেড়েছে ২২ শতাংশ  » «   ব্যাটারি চালিত অটোরিকশার শোরুম সিলগালা করলো সিসিক  » «  

আস্ত মোবাইল ফোন গিলে ফেলল বন্দী!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ছিনতাই, ডাকাতির অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়ে প্রায় বছরখানেক ধরে জেলে বিচারাধীন বন্দী হিসেবে রয়েছেন রামচন্দ্র বোগাপ্পা নামে এক ব্যক্তি। চোখের নিমেষে সে গিলে ফেললো আস্ত একটা মোবাইল ফোন! তল্লাশির হাত থেকে বাঁচতে গিয়ে এই কাজ করেছে সে। পরে হাসপাতালে এক্স-রে করে ধরা পড়ে পাকস্থলিতে রয়েছে ছোট্ট চাইনিজ মোবাইল ফোনটি।

সোমবার দুপুরে ভারতের কলকাতার প্রেসিডেন্সি জেলে তল্লাশিতে গিয়ে দেখেও মোবাইল ফোনটি খুঁজে পাননি টিমের সদস্যরা।জেল সূত্রে জানা গেছে, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী এদিন দুপুরে আচমকাই জেলের অভ্যন্তরে তল্লাশি শুরু হয়। তল্লাশি টিমের সদস্যেরা গোটা জেল, ওয়ার্ড ঘুরে পরীক্ষা করছিলেন। সে সময় টিমের এক সদস্যের নজরে আসে এক বন্দী ওয়ার্ডের কোণায় লুকিয়ে কানের কাছে হাত নিয়ে কথা বলছে। হাতের মুঠোর মধ্যে মোবাইল ফোনের মতো ছোট আকারের বস্তু। টিমের সদস্যরা সেদিকে এগোতেই পালানোর চেষ্টা করে রামচন্দ্র নামে ওই বন্দি। কিছুটা গিয়ে হাতের মধ্যে থাকা মোবাইল ফোন আস্ত গিলে ফেলে সে।

রামচন্দ্রকে ছিনতাই, ডাকাতির অভিযোগে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ।প্রায় বছরখানেক জেলে বিচারাধীন বন্দী হিসেবে রয়েছে ভিনরাজ্যের বাসিন্দা রামচন্দ্র। একাধিকবার জেলের ভেতর মোবাইল ফোনে কথা বলার অভিযোগ পেলেও তার ওয়ার্ডে গিয়ে কোনও কিছুর হদিস মেলেনি। এদিন তল্লাশি টিমের নজরে পড়ে যায় রামচন্দ্র। তল্লাশি চালিয়েও শরীরের কোনো অংশ থেকেই মোবাইল ফোনের খোঁজ মেলেনি। শেষে বাধ্য হয়ে ছেড়ে দিতে হয় রামচন্দ্রকে।

বিকালের দিকে হঠাৎই তীব্র পেটের যন্ত্রণা শুরু হয় রামচন্দ্রের। তাকে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে স্থানীয় হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে এক্স-রে করে ধরা পড়ে যে মোবাইল ফোনটি পাকস্থলির নিচের অংশে আটকে রয়েছে। ঘণ্টাখানেক পর্যবেক্ষণে রেখে সন্ধ্যায় জেলে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।পরে রাতে এম আর বাঙ্গুর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: