সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে থাকবে সরকার: কাদের  » «   থানায় ‘গণধর্ষণের’ শিকার সেই নারীর জামিন নামঞ্জুর  » «   মিন্নির স্বীকারোক্তির আগে নাকি পরে এসপির ব্রিফিং : হাইকোর্ট  » «   প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের দুপুরের খাবারে মন্ত্রিসভার সায়  » «   নবম ওয়েজবোর্ডের গেজেট প্রকাশ নিয়ে আপিল বিভাগের সিদ্ধান্ত মঙ্গলবার  » «   পাঁচভাই রেস্টুরেন্টে প্রবাসীর ওপর হামলা: দুই ছাত্রলীগ কর্মী গ্রেপ্তার  » «   সিলেটসহ রেলের পূর্বাঞ্চলের নিরাপত্তা নিশ্চিতে হাইকোর্টের রুল  » «   বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়া নয়, আ.লীগ নেতারা জড়িত : ফখরুল  » «   রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন: ‘শঙ্কা’ নিয়েই প্রস্তুত বাংলাদেশ  » «   সুনামগঞ্জে বিষপানে যুবকের আত্মহত্যা  » «   পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ইভিনিং প্রোগ্রামে জমজমাট শিক্ষা বাণিজ্য  » «   ১০ দিনে ১৭৫ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা  » «   আজ বাংলাদেশে আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, গুরুত্ব পাবে তিস্তা চুক্তি  » «   হবিগঞ্জে সড়ক দূর্ঘটনায় পুলিশ কনস্টেবলের মৃত্যু  » «   খুলনা থেকে সিলেট পর্যন্ত জমি ভারতকে ছেড়ে দিতে হবে বাংলাদেশকে!  » «  

আমিরাতে ডাকাতির দায়ে আট প্রবাসীর মৃত্যুদণ্ড



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: সশস্ত্র ডাকাতিতে অভিযুক্ত আট প্রবাসীকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজা শহরের ফৌজদারি অপরাধ আদালত। মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত এই প্রবাসীদের বিরুদ্ধে শারজার একটি মানি এক্সচেঞ্জ সেন্টারে ডাকাতির অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।

দুবাইভিত্তিক আরবি ভাষার দৈনিক এমারেত আল ইয়ুম বলছে, অভিযুক্ত ওই প্রবাসীরা মানি এক্সচেঞ্জ সেন্টারে সশস্ত্র অবস্থায় লুটপাট চালায়। তারা সেখানে প্রবেশ করে সাধারণ জনগণের ওপর হামলা ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মারধরের পর ভয়-ভীতি দেখিয়ে টাকা লুট করে চলে যায়।

এই মামলায় অপর এক অভিযুক্তকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। লুটের টাকার ভাগ নিজের কাছে রেখে দেয়ায় সাজা শেষে তাকে নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আমিরাতের এই আদালত। তবে অভিযুক্ত এই ব্যক্তি তার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

তিনি বলেছেন, অভিযুক্তদের একজনের ভাই লুটের ৬০ হাজার আমিরাতি দিরহাম নিজ দেশের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঠানোর জন্য অনুরোধ করেছিলেন।

তবে মানি এক্সচেঞ্জ সেন্টারে সশস্ত্র ডাকাতির এই অভিযোগ দণ্ডপ্রাপ্তদের কয়েকজন স্বীকার করলেও বাকিরা প্রত্যাখ্যান করেছেন। পুলিশের তদন্ত বলছে, মানি এক্সচেঞ্জ সেন্টারের ভিডিও ফুটেজ দেখে অভিযুক্তদের গ্রেফতারের পর তাদের আঙুলের ছাপ পরীক্ষা করা হয়েছে।

গ্রেফতারের পর পুলিশের কাছে দেয়া স্বীকারোক্তিতে শারজার মানি এক্সচেঞ্জ সেন্টারে সশস্ত্র ডাকাতির অভিযোগ স্বীকার করেছেন তারা। অভিযুক্তদের একজন লুটের কিছু টাকা আদালতের কাছে ফেরত দিয়েছেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: