মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লিপস্টিক যখন মাজাদার খাবার!  » «   কিশোরী ধর্ষণের প্রমান মেলায় ২ নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র  » «   শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমৃদ্ধ শিক্ষা দিতে হবে- রেজাউল রহিম লাল  » «   মাশরাফির রংপুরের কাছে নাসিরের সিলেটের পরাজয়!  » «   যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় নারীর মৃত্যু  » «   সালমানের স্ত্রী-সন্তান থাকে বিদেশে!  » «   পুলিশ পেটালো ছাত্রলীগ!  » «   চুয়াডাঙ্গায় সাপের কামড়ে একজনের মৃত্যু  » «   বিপিএল পয়েন্ট টেবিলে কে কোথায় দাঁড়িয়ে  » «   আম্পায়ারের সঙ্গে সাকিবের এ কেমন আচরণ!  » «   সংসদে বাদলকে তুলোধুনো করলেন নৌমন্ত্রী  » «   ৭ মার্চ কেন জাতীয় দিবস নয় : হাইকোর্ট  » «   আজ সুফিয়া কামালের জন্মদিন  » «   অভিবাসীবিরোধী নন ট্রাম্প  » «   আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধন করবেন শাহরুখ  » «  

‘আমরা ভাগাভাগির প্রেস ক্লাব চাই না’



17. press newsনিউজ ডেস্ক::
বিএনপির মুখপাত্র ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন বলেছেন, দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে জাতীয় প্রেস ক্লাবের গৌরবজ্জল ভূমিকা রয়েছে। বিএনপি ভাগাভাগির রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না। তাই আমরা ভাগাভাগির প্রেস ক্লাব চাই না। প্রেস ক্লাবে নির্বাচনের মাধ্যমেই নেতৃত্ব দেখতে চায় বিএনপি।

বিএনপির মুখপাত্র বলেন, জাতীয় প্রেস ক্লাবের নির্বাচিত কমিটিকে সরিয়ে অনির্বাচিত ব্যক্তিদের নেতৃত্বে বসানো হয়েছে। এতে আবারও প্রমাণিত হয়, সরকার জলাতঙ্ক রোগের মত ভোটাতংকে ভুগছে। আমরা জাতীয় প্রেস ক্লাবে নির্বাচনের মাধ্যমেই নেতৃত্বে দেখতে চাই।’

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের জটিলতা নিয়ে বিএনপির অবস্থান তুলে ধরতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির যুব বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ মোয়াজ্জে হোসেন আলাল, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, সহ স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক এবি এম মোশাররফ হোসেন প্রমুখ।

আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, ‘সম্প্রতি জাতীয় প্রেস ক্লাবের ব্যবস্থপনা কমিটি নিয়ে বিরোধ-বিভেদ তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন আলোচনা হচ্ছে। আমরা শুনেছি- সেখানে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সাংবাদিকরা মিলে একটি কমিটি গঠন করে নির্বাচিত কমিটিকে সরিয়ে দিয়েছে। আমরা যেমন এটাকে জাতীয়তাবাদী প্রেস ক্লাব হিসেবে দেখতে চাই না, তেমনি একে আওয়ামী প্রেস ক্লাব হিসেবেও দেখতে চাই চাই না।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আগে বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন, বুদ্ধিজীবী ও সুশীল সমাজ জাতীয় রাজনীতিতে ব্যাপক প্রভাব রাখত। স্বৈরাচার এরশাদের সময় ৩১জন বুদ্ধিজীবীর একটি বিবৃতি স্বৈরাচারের ভিতকে কাঁপিয়ে দিয়েছিল। কিন্তু এখন ৩১জন নয়, ৩১শ বুদ্ধিজীবীর বিবৃতিও রাজনীতি বা সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করতে পারে না। এখন দেশে কার্যত সুশীল সমাজ বলেই কিছু নেই।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে রিপন বলেন, প্রেস ক্লাবের কমিটিতে আওয়ামী লীগের সঙ্গে বিএনপির যারা আছেন, তাদেরকে আমরা বিএনপির লোক বলে ভাবতে চাই না। কারণ দেশের প্রধান বিচারপতি বা সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রধানরাও যখন জাতীয় নির্বাচনে ভোট দিতে যান, তখন তারাও কোনো না কোনো রাজনৈতিক দলকেই ভোট দেন। কিন্তু তা কোনো ধর্তব্য বিষয় নয়। সাংবাদিকদের আমরা সাংবাদিক হিসেবেই দেখতে চাই। সেখানে কে আওয়ামী লীগ, কে বিএনপি তা তার মতাদর্শে থাকতেই পারে, কিন্তু জাতীয় প্রেস ক্লাবে যেন কোনো রাজনৈতিক পরিচয় মূখ্য হয়ে না উঠে।’

জাতীয় সংসদে আসন্ন বাজেট ঘোষণার বিষয়ে বিষয়ে আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, যেখানে বাজেট ঘোষণা করা হবে, তা কি জনগণের নির্বাচিত সংসদ? এ সংসদে জনগণের কোনো ম্যান্ডেট নেই। তাই ওই সংসদে কী পেশ করা হলো, তা নিয়ে জনগণের কোনো আগ্রহ নেই।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: