মঙ্গলবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পর্নোগ্রাফির মামলা নিয়ে ভাবছেন না কুসুম শিকদার  » «   ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত আশরাফুল  » «   ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সন্তান পরিচয় দিয়ে পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকুরী  » «   মানববন্ধনে রিজভীচাল নেই: সরকারি গোডাউনে ইঁদুর খেলা করছে  » «   নতুন বিয়ে নিয়ে মুখ খুললেন ময়ূরী  » «   ‘যৌন নিপীড়ন বন্ধে বাংলাদেশ জিরো টলারেন্স নীতি নিয়েছে’  » «   মৌলভীবাজারে অং সান সুচির কুশপুত্তলিকা দাহ  » «   ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ুয়াদের অভিভাবকের নাম অন্তর্ভুক্তি চেয়ে রিট  » «   পদ্মায় নিখোঁজ কনস্টেবলের মরদেহ ২৪ ঘন্টায় উদ্ধার হয়নি  » «   রাজধানীর পানিতে ঝুঁকিপূর্ণ জীবন  » «   উপজেলা পর্যায়ে চালু হচ্ছে ওএমএস  » «   ‘মধ্যরাতে আমাকে ঘিরে ধরে মাতালেরা, এরপর শুরু করে…’  » «   ভদ্র চালকদের জন্য পুরস্কার  » «   শাহজালালে সিগারেটসহ ৬ ভারতীয় নাগরিক আটক  » «   ৮ সন্তানকে আনতে পেরেছি আরেকজন জেলে  » «  

আদিবাসী নারীকে দিনের পর দিন ধর্ষণ



নিউজ ডেস্ক::রাজশাহীতে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে আদিবাসী এক নারীকে দিনের পর দিন ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় সুজন আলী (২৪) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। প্রতারক সুজন উপজেলার খানপুর গ্রামের আফসার আলীর ছেলে। শনিবার গভীর রাতে সুজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দায়ের করেছেন উপজেলার পিয়ারপুর গ্রামের ২৩ বছর বয়সী প্রতারণার শিকার ওই নারী।

মামলার এজাহারে এক সন্তানের জননী ওই আদিবাসী নারী দাবি করেছেন, প্রায় দুই বছর ধরে সুজনের সঙ্গে তার পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। বিয়ের প্রলোভন দিয়ে সুজন তার সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কও গড়ে তুলেছিলেন। শনিবার রাতেও সুজন তার বাড়ি গিয়েছিলেন। কিন্তু বিয়ের কথা বলতেই তালবাহানা শুরু করেন সুজন। তখন এলাকার লোকজন ডেকে তাকে আটকে রাখেন।

মোহনপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাসুদ পারভেজ জানান, এলাকার লোকজনই পুলিশে খবর দেন। পরে তাদের দুজনকেই থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর ওই নারী মামলা করেন। রবিবার সকালে সুজনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। ওই নারীকেও ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: