শনিবার, ২৬ মে ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
মিয়ানমারের ওপর অবরোধ আরোপের সুপারিশ কানাডিয়ান দূতের  » «   সালমান খানের সঙ্গে শাকিব খানের তুলনা করলেন পায়েল  » «   বিশ্বকাপ মিশনে নামার আগে মক্কায় পগবা  » «   সিটি নির্বাচনের প্রচারে এমপিরা কি অংশ নিতে পারবেন?  » «   তালিকা অনুযায়ী সবাইকে ধরা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   আমজাদ হোসেনের জার্মানি পতাকা এবার সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার  » «   ভক্তদের প্রশ্নের জবাব দিয়ে কক্সবাজার ছাড়লেন প্রিয়াঙ্কা  » «   জাপানে বন্ধুর ক্লাবই নতুন ঠিকানা ইনিয়েস্তার  » «   মুক্তামনির মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক  » «   ‘ভারত থেকে এক বালতি পানিও আনতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী’-রিজভী  » «   চৌদ্দগ্রামে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক বিক্রেতা নিহত  » «   জবিতে কোটা সংস্কার আন্দোলন নেতার ওপর হামলা  » «   নারীর মন-শরীর নিয়ন্ত্রণ করে পুরুষ আধিপত্য চায়: বিদ্যা  » «   আখাউড়ায় হচ্ছে ইন্টিগ্রেটেড চেকপোস্ট  » «   ২১ ঘণ্টা রোজা রাখছেন ৪ দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমান!  » «  

আইনের তোয়াক্কা করছে না কেউবন্ধ হয়নি যানবাহনে স্টিকার লাগানো



নিউজ ডেস্ক::রাজধানীতে যানবাহনে স্টিকার লাগানো নিষেধাজ্ঞা থাকলেও মানছেনা তা কেউই। খোদ পুলিশ তার নিজের মোটর সাইকেলে পুলিশ স্টিকার লাগিয়ে ঘুরছে। আর সাংবাদিক, আইনজীবীরা তার বাহিরে নয়।

২০১৬ মে মাসের ৫ তারিখে, পুলিশ কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া বলেছিলেন, পুলিশ, আইনজীবী, সাংবাদিকসহ কেউ যদি গাড়িতে ইষ্টিকার লাগায়, তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তার পর থেকে কিছুদিন স্টিকার লাগানো বন্ধ হলেও, সে আইনের তোয়াক্কা করছে না কেউই।

মোহাম্মদপুর জোনের সার্জেন্ট বলেন, মাঝে মাঝে আমরা চেক করি, আমাদের সিনিয়য়ের অনুমতি পেলে। স্টিকার লাগানোর জন্য কোন জরিমানার নিয়ম না থাকায় আমরা কেউই জরিমানা করতে পারিনা।

ট্রাফিক পুলিশ বেলাল বলেন, স্টিকার লাগানো থাকলে আমরা সিগন্যাল দেই না, বুঝা যায় না উনি কে যাচ্ছে, অনেক সময় অবৈধ্য মাল চলে যায়, কিন্তু কি করার আছে। আমরাতো আর বুজতে পারছি না।

কিছু দিন আগে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে একটি ভিডিও ছড়িয়ে পরে। সেখানে দেখা যায়, গাড়িতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টিকার ব্যাবহার করে নিজেকে রাস্তার মাস্তান দাবি করে। এবং বাবার বয়সী এক মুরব্বিকে নিজের পা ধরে মাফ চাওয়ানো হয় এক বাস চালককে।

কিন্তু পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায় ঐ লোক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন শিক্ষক নয়।

সমাজের এসব পেশার মানুষের স্টিকার ব্যবহার করে নানা ধরনের অপরাধ ঘটছে। একটি গোষ্ঠী এ পদ্ধতি বেছে নিয়েছে। তারা যেন এ সুযোগ আর নিতে না পারে সে জন্যই এই নিষেধাজ্ঞা করা হয়ে ছিল। যা পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত অব্যাহত থাকার কথা ছিল, কিন্তু নির্দেশ দেওয়ার আগেই বন্ধ করতে পারে নাই স্টিকার লাগানো।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: