সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
হবিগঞ্জে ছেলেধরা সন্দেহে তিনজনকে গণপিটুনি  » «   গণপিটুনিতে রেনু নিহতের ঘটনায় আটক ৩ জন রিমান্ডে  » «   ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে মামলা  » «   ফের জাতীয় সংলাপের আহ্বান ড. কামালের  » «   জবানবন্দি প্রত্যাহার ও চিকিৎসা- মিন্নির পক্ষে দুই আবেদনই নামঞ্জুর  » «   উ. কোরিয়ায় নির্বাচন: ভোট পড়েছে ৯৯.৯৮ শতাংশ  » «   এইডস ঝুঁকিতে সিলেট ও মৌলভীবাজার  » «   ঈদের আগেই সরকারি ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষার ফল  » «   বিমানের ৪৫ হাজার টিকিট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে হরিলুট  » «   মিন্নি নয়, রিফাত হত্যার নেপথ্যে চেয়ারম্যানের স্ত্রী?  » «   পাকিস্তানে নারী আত্মঘাতীর বিস্ফোরণে ছয় পুলিশসহ নিহত ৯  » «   সাইকেল চালিয়ে হজ করতে যাচ্ছেন ৮ ব্রিটিশ মুসলিম  » «   প্রিয়া সাহার মিথ্যা বক্তব্য মার্কিন আধিপত্য বিস্তারের ষড়যন্ত্র : জয়  » «   বাংলাদেশের পোশাক খাতে রপ্তানি বেড়েছে ২২ শতাংশ  » «   ব্যাটারি চালিত অটোরিকশার শোরুম সিলগালা করলো সিসিক  » «  

অ্যাসাঞ্জের কণ্ঠ থামিয়ে দিতে চায় ক্ষমতাশালীরা: চমস্কি



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: বিকল্প সংবাদমাধ্যম উইকিলিকস-এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতারকে কলঙ্কজনক আখ্যা দিয়েছেন মার্কিন ভাষাতাত্ত্বিক ও রাজনীতি বিশ্লেষক নোম চমস্কি। তিনি বলেছেন, সাংবাদিকতার কণ্ঠরোধ করতেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে নেওয়া পদক্ষেপকে ইতালির ফ্যাসিস্ট মুসোলিনি সরকার কর্তৃক অ্যান্তোনিও গ্রামসিকে কারাগারে নিক্ষেপের ঘটনার সঙ্গে তুলনা করে তিনি বলেছেন, তাকে চুপ করিয়ে দেওয়াটা ক্ষমতাশালীদের জন্য জরুরি ছিল। এ ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের পদক্ষেপের জোরালো সমালোচনা করেছেন চমস্কি।

২০১২ সালের জুন থেকে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। ৪ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) উইকিলিকসের টুইটে বলা হয়, ইকুয়েডর সরকারের উচ্চপর্যায়ের দু’টি সূত্র থেকে তারা নিশ্চিত হয়েছে যে কয়েক ঘণ্টা থেকে কয়েক দিনের মধ্যে অ্যাসাঞ্জকে দূতাবাস থেকে তাড়ানো হতে পারে। সেই ধারাবাহিকতায় রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাহার করে বৃহস্পতিবার তাকে ব্রিটিশ পুলিশের হাতে তুলে দেয় ইকুয়েডর। পরে সেই ধারাবাহিকতায় অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে পুরনো বিতর্কিত ধর্ষণ মামলা পুনঃতদন্তের ইঙ্গিত দেয় সুইডেন।

অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে চলমান ধারাবাহিক আইনি পদক্ষেপের বিরুদ্ধে বরাবরই সোচ্চার বিশ্বজুড়ে ক্ষমতাশালীদের নষ্টামোর বিপরীতে ন্যায় ও সমতার পক্ষের বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর চমস্কি। ‘মুক্তিপথের সমাজতন্ত্র’-এ বিশ্বাসী চমস্কি ডেমোক্র্যাসি নাউকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতার কয়েকটি দিক থেকে কলঙ্কজনক। এর একটি হলো বিভিন্ন সরকারের পদক্ষেপ। কেবল যুক্তরাষ্ট্র সরকার নয়, রয়েছে যুক্তরাজ্যও। নিশ্চিতভাবে ইকুয়েডরও রয়েছে। সুইডেন অতীতে সহায়তা দিয়েছে। এসব পদক্ষেপ হলো এক সাংবাদিককে চুপ করিয়ে দেওয়ার।’

চমস্কি মনে করেন, সাধারণ মানুষের কাছ থেকে ক্ষমতাশালীরা যা গোপন করতে চায়, উইকিলিকস সেইসব নথিই প্রকাশ করেছে। সেকারণেই তাকে চুপ করানোর দরকার পড়লো। একে তিনি মুসোলিনির ফ্যাসিস্ট সরকার কর্তৃক কমিউনিস্ট চিন্তাবিদ আন্তোনিও গ্রামসিকে কারাগারে ঢোকানোর সঙ্গে তুলনা করেন। সেই সময়ের ইতিহাসকে সামনে এনে চমস্কি বলেন, ‘প্রসিকিউটররা বলেছিলেন ২০ বছর ধরে এই কণ্ঠকে থামানোর দরকার ছিল। একে বলতে দেওয়া চলে না।’ তার মতে অ্যাসাঞ্জের বাস্তবতাও একই রকমের।

অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতারের নেপথ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকার কথা আর কারও অজানা নয়। অভিযোগ উঠেছে, ঋণ মওকুফের শর্তে ইকুয়েডরের সরকার তার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে রাজি হয়েছে। ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষও স্বীকার করেছে, যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যপর্ণের অনুরোধ সাপেক্ষেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বহিঃবিশ্বের ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের এমন হস্তক্ষেপকে ‘জঘণ্য’ আখ্যা দিয়ে চমস্কি বলেন, ‘কেন যুক্তরাষ্ট্র কিংবা অন্য কোনও রাষ্ট্র এটা করতে পারবে? কেন যে বিশ্বের যে কোনও স্থানের ঘটনা নিয়ন্ত্রনের ক্ষমতা যুক্তরাষ্ট্রের থাকবে? আমি বলতে চাই এটা একটা অদ্ভূত পরিস্থিতি। সব সময়ই এটা হয়ে আসছে। আমরা এটা খেয়ালই করি না।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: