শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
নিজেদের বিমান বাহিনী থেকে সুরক্ষা পেতেই এরদোগানের এস-৪০০ ক্রয়!  » «   জাপানে অ্যানিমেশন স্টুডিওতে অগ্নিসংযোগ, নিহত ১২  » «   খাদ্য ঘাটতি পূরণ করেছি, এখন লক্ষ্য পুষ্টি: প্রধানমন্ত্রী  » «   রিফাত হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে মিন্নি  » «   বাংলাদেশের পতাকার আদলে অন্তর্বাস বিক্রি করছে অ্যামাজন  » «   রিফাত হত্যাকাণ্ড: এবার রিশান ফরাজীও গ্রেফতার  » «   বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি কেলেঙ্কারি: সিস্টেম লস নয় দুর্নীতি  » «   বন্যার কারণে জাতীয় ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পরীক্ষা স্থগিত  » «   হঠাৎ কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে শক্ত পদক্ষেপ, মাঠে নামছে র‌্যাব  » «   ধসে পড়া ভবনে মিললো বাবা-ছেলের মরদেহ  » «   ইসরাইলের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের তীব্র নিন্দা  » «   ‘নয়ন বন্ডের বাড়িতে বসেই স্বামীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন মিন্নি’  » «   সিলেটের ২ জনসহ দেশসেরা ১২ শিক্ষার্থীকে পুরস্কার দিলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   বেনাপোল ও বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   উপজেলা নির্বাচন: সিলেটে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের বহিষ্কারের তালিকা  » «  

অভিবাসী প্রশ্নে ইউরোপকে আরও মানবিক হতে বলল জাতিসংঘ



2000নিউজ ডেস্ক :: লিবিয়া উপকূলে দুইবারে ৫২ ও ২০০ এবং অস্ট্রিয়ার লরিতে ৭১ অভিবাসীর মরদেহ উদ্ধারের পর নড়ে চড়ে বসেছে ইউরোপের দেশগুলো। মানব পাচারের অভিযোগে ১০জনকে আটক করেছে ইতালির পুলিশ। আর অস্ট্রিয়ার লরিতে মরদেহ পাবার ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে হাঙ্গেরিতে বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে সেদেশের পুলিশ। আর অভিবাসী ইস্যুতে ইউরোপকে আরও মানবিক হবার অনুরোধ জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন।
শুক্রবার ইতালির পুলিশ দশজনকে আটক করে। তাদের বিরদ্ধে অবৈধ মানবপাচারের অভিযোগ আনা হয়েছে। আর অষ্ট্রিয়ার পুলিশ হাঙ্গেরিতে ৩জনের আটক হবার কথা নিশ্চিত করলেও হাঙ্গেরির তরফে জানানো হয়েছে, এ অভিযোগে তাদের দেশে ৪জন কারাগারে আছে।
ইউরোপের সাম্প্রতিক অভিবাসন সঙ্কটের পর জাতিসংঘের তরফে বলা হয়েছে, ইউরোপে পালিয়ে অাসাদের মৃত্যু ঠেকাতে এখনো ‘অনেক কিছু’ করার বাকি আছে। গেলো কয়েকদিনে ইউরোপে পালিয়ে আসতে গিয়ে শতাধিক অভিবাসী নিহত হয়েছেন।
এ ভয়াবহ ঝুঁকিপূর্ণ অভিবাসন ঠেকাতে সংহতির ঢাক দিয়ে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন বলেছেন, একটি সামগ্রিক রাজনৈতিক ঐক্যমতই এ পরিস্থিতি মোকাবিলায় সহায়ক হতে পারে। একই সাথে তিনি সংশ্লিষ্ট দেশগুলোকে অভিবাসীদের জন্য বৈধ ও নিরাপদ পথ উন্মুক্ত করারও আহবান জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার অষ্ট্রিয়ার একটি লরি/ট্রাকে ৭১ জন অভিবাসীর মৃতদেহ পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে এরা সবাই সিরিয়ার নাগরিক। আর লিবিয়া উপকূলে দুটি অভিবাসীবাহী নৌকাডুবিতে মারা গেছে অন্তত ২০০ জন অভিবাসী। এরা লিবিয়ার ত্রিপোলি থেকে ইটালির উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছিলেন। এ ২০০ জনের প্রায় সবাই সিরিয়া এবং আফ্রিকার দেশগুলোর। নিহতদের মধ্যে আছে অন্তত ৮ জন বাংলাদেশিও। একদিন আগে বুধবার লিবিয়া উপকূলেই অন্তত ৫২ জন অভিবাসীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছিলো।

এ ধরণের মৃত্যু ভয়ঙ্কর এবং হুদয়বিদারক বলে উল্লেখ করেছেন বান কি মুন। তিনি বলেন, যারা এ ইউরোপে অভিবাসী হওয়ার আশায় এ ধরণের ভয়ঙ্কর আর বিপদসঙ্কুল পথ পাড়ি দিতে উদ্যত হয়, বা পাড়ি দেয় তারা অধিকাংশই সিরিয়া, ইরাক এবং আফগানিস্তান থেকে পালিয়ে আসা নাগরিক। আন্তর্জাকিতক সম্প্রদায়ের উচিত এসব দেশে দ্বন্দ্ব নিরসনে এমন কিছু করা যাতে এ মানুষগুলোর অন্তত এভাবে পালিয়ে আসতে না হয়।
ইউরাপের দেশগুলোকে আরো মানবিক হওয়ার আহবান জানিয়ে বান কি মুন বলেন, রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থনার আন্তর্জাতিক আইনগুলো দেশগুলোর আরও ভালোভাবে খতিয়ে দেখা উচিত। মানুষগুলো যে দেশ থেকে পালিয়ে আসে, তাদেরকে যেন আবার সে একই স্থানে ঠেলে না দেয়া হয়, সেজন্য দেশগুলোর প্রতি আহবান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব। তিনি জোর দিয়ে বলেন, এটা শুধু আন্তর্জাতিক আইনের বিষয় নয়, বিষয়টি মানবতারও। মানুষ হিসেবেও এ অসহায় মানুষগুলোর প্রতি আমাদের দায়িত্ব আছে।

যারা মানবপাচারের সাথে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধেও আরো কঠোর ব্যাবস্থার তাদিগও দিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব। একই অবস্থান হোয়াইট হাউজেরও।

সাম্প্রতিক এসব ঘটনায় আবারো আলোচনায় ইউরোপে অভিবাসন সঙ্কট। ইউরোপের পাশের দেশগুলোতে বছরের পর বছর অশান্তি বিরাজ করায় কয়েকবছর ধরেই ইউরোপে অভিবাসন সঙ্কট তীব্র। ইউরোপের দেশগুলোও তীব্র অভিবাসনবিরোধী অবস্থান নিয়েছে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: