শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা  » «   সীমান্তের খালে মিয়ানমারের সেতু, বন্যার আশঙ্কা বাংলাদেশে  » «   দ্বিতীয় কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠাবে বাংলাদেশ: শাবিতে পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   আতিয়া মহল মামলা: ৫ দিনের রিমান্ডে ৩ আসামি  » «   শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টা মামলা: হাইকোর্টে আপিল শুনানি শুরু  » «   টিআইবির রিপোর্টে সরকার ও ইসির আঁতে ঘা লেগেছে: বিএনপি  » «   মাফিয়াদের স্বর্গরাজ্যে দশ বাংলাদেশির অনন্য সাহসিকতার নজির  » «   ১৪ দলের শরিকদের বিরোধী দলে থাকাই ভালো: ওবায়দুল কাদের  » «   সন্ত্রাস-মাদক-জঙ্গিবাদের মতো দুর্নীতির বিরুদ্ধেও ‘জিরো টলারেন্স’ : প্রধানমন্ত্রী  » «   সংসদ সদস্যদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ  » «   কৃত্রিম কিডনি তৈরি করলেন বাঙালি বিজ্ঞানী  » «   ব্রেক্সিট ইস্যু: অনাস্থা ভোটে টিকে গেলেন তেরেসা মে  » «   টিআইবির প্রতিবেদন গ্রহণযোগ্য নয়, পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করি: সিইসি  » «   জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে অফিস করছেন শেখ হাসিনা  » «   সংসদ কার্যকর রাখতেই বিরোধী দলে জাপা : জিএম কাদের  » «  

অনলাইনে প্রেমের ক্ষেত্রে যেসব বিষয়ে সাবধান থাকবেন



লাইফ স্টাইল ডেস্ক:: একাকিত্ব দূর করতে দরকার পড়ে সঙ্গীর।সেই সঙ্গী হতে পারে পরিচিত কেউ, হতে পারে একদমই অচেনা একজন।এখনকার সময়ে বন্ধু কিংবা সঙ্গী তৈরি করতে সাহায্য করছে সোস্যাল মিডিয়া।এর মাধ্যমে সহজেই দেখা মিলছে মনের মানুষের।কিন্তু সেই ‘মনের মানুষ’ কতটা আপনার মনের মতো সে বিষয়ে নিশ্চিত না হয়ে সম্পর্ক না আগানোই ভালো।অনলাইনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলার ক্ষেত্রে সাবধান থাকতে হবে কিছু বিষয়ে-

অনলাইনে যার সঙ্গেই আলাপ হোক না কেন একটা বিষয় সবসময় মাথায় রাখবেন,ওপাশের মানুষটিকে (সে ছেলে বা মেয়ে যে-ই হোক না কেন) আপনি একদমই চেনো না। ফলে তার সঙ্গে আলাপ করার সময়েও সতর্ক থাকবেন।যদি দেখেন আপনারও ‘নতুন বন্ধু’টি শুরুতেই বেশি ঢলাঢলির চেষ্টা করছে,আপনার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বেশি আগ্রহ দেখাচ্ছে,তাহলে যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন।

অনলাইনে বেশি ফ্লার্ট যারা করে, তাদের কিন্তু বেশ একঘেয়ে একটা প্যাটার্ন হয়।একটু ভালো করে দেখলেই তো বোঝা যায় কে আসল আর কে নকল।হয়তো তার নিজের ছবি প্রোফাইলেই নেই।নেট-দুনিয়ায় গুগল করে সুন্দর সুন্দর ছেলে/মেয়ের ছবি জোগাড় করা কিন্তু কোনো ব্যাপারই নয়। তাই যার সঙ্গে রাত-দিন এত কথা বলছেন, তার প্রোফাইলটাও ভালো করে ঘেঁটে দেখুন।

অপর পাশের মানুষটি কি আপনার সঙ্গে সারাক্ষণ কথা বলতে চাইছে? বেশি কথা বললে অবধারিতভাবে ব্যক্তিগত জীবনের কথা আসবে,সে আপনার পার্টনার,সম্পর্কের খবর জানতে চাইবে।কিন্তু ব্যাপার যদি বেশি বাড়াবাড়ির দিকে যায়,তা হলে সাধু সাবধান!আর বেশি ছবি, সেলফি কিন্তু একদমই ইনবক্স করতে যাবেন না!

এসব ক্ষেত্রে ফোন নম্বর চাইতেই পারে অপরপাশের মানুষটি।আপনি যদি ব্যাপারটাকে এগোতে দিতে চাও,তাহলে ফোন নম্বর দিতে পারেন।কিন্তু তার আগে বারবার ভেবে নেবেন।কারণ একবার আপনি ফোন নম্বর দিলেন,আর তারপর সে আপনাকে উত্ত্যক্ত করে মারলো,এটা হতেই পারে।যেচে ঝামেলা এড়ানোই তো ভালো, তাই না?

অনলাইনের ব্যাপারটা যদি সিরিয়াসভাবে নেন এবং আপনিও যদি এব্যাপারে কনফিডেন্ট থাকেন, তাহলে আপনার বন্ধুদের সঙ্গে পরামর্শ নিতে পারেন। হাজার হোক, অপর পাশের মানুষটিকে কিন্তু আপনি চেনেন না। তাই বিপদ হতে কতক্ষণ!অনলাইনে এইসব ক্ষেত্রে খানিক পরেই আসে দেখা করার প্রস্তাব। আপনি কনফিডেন্ট হলে দেখা করতেই পারেন, আর যদি না চান, তাহলে সোজা না বলে দিন। দেখা করার ক্ষেত্রেও মাথায় রাখুন কয়েকটি জিনিস। আপনার অচেনা জায়গায় একদম যাবেন না।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: