বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পাবনায় সিভিল সার্জন কার্যালয়ে কমিউনিটি ক্লিনিক-এ কমর্রত কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডারদের অবস্থান কর্মসূচী পালন  » «   আল-আকসা সংস্কারে ইসরাইলের নিষেধাজ্ঞা!  » «   ঢাবি অধিভুক্ত ৭ কলেজের মানববন্ধন ১৮ জানুয়ারি  » «   এক সপ্তাহেও সন্ধান মেলেনি নিখোঁজ পরীক্ষার্থী বাপ্পীর  » «   উজানের দেশ সমূহ হতে বাংলাদেশে মোট ৫৭ টি নদী প্রবাহিত  » «   নরসিংদীতে অটোরিকশা চালকের লাশ উদ্ধার  » «   এ দেশে কোনো দস্যুতা চলবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   স্কুল ছাত্রকে পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠালো শিক্ষক  » «   হবিগঞ্জের স্কুল পরিদর্শনে কোরিয়ার প্রতিনিধি দল  » «   সড়কে পড়ে গিয়ে যা বললেন আইভী!  » «   বেসরকারি হাসপাতালে চলছে নৈরাজ্য!  » «   নীলফামারীতে নকল সার উদ্ধার, ২০ হাজার টাকা জরিমানা  » «   সিলেটে বোলারদের দাপট  » «   ৩ লাখ ৫৯ হাজার ২৬১ সরকারি পদ শূন্য  » «   ডাকসু নির্বাচন নিয়ে হাইকোর্টের রায় বুধবার  » «  

অনলাইনে আসক্তি বাড়ছে শিশু-কিশোরদের



লাইফস্টাইল ডেস্ক::অতিমাত্রা ইন্টারনেটে আসক্ত হয়ে পড়ছে শিশু-কিশোররা। খেলাধুলা বিমুখ হয়ে ইন্টারনেটের দিকে বেশি মনোযোগী হচ্ছে তারা। ইটারনেট ব্যবহারে ভবিষ্যতে শারিরীক ও মানসিক ভাবে পিছিয়ে পড়ার আশংকা করছেন শিশু ও কিশোর বিশেষজ্ঞরা।

বিশেষজ্ঞরা জানান, সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে তথ্য প্রযুক্তি। শহর থেকে শুরু করে গ্রাম অঞ্চলেও ছোঁয়া লেগেছে তথ্য প্রযুক্তির। গত কয়েক বছর আগেও মানুষ বিদেশে কথা বলার জন্য দোকানে গিয়ে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে হতো। কিন্তু বর্তমানে শিশু থেকে বৃদ্ধা পর্যন্ত সকলের হাতে মোবাইল ফোন রয়েছে। তার সাথে যুক্ত রয়েছে ইন্টারনেট সংযোগ। দেশের মধ্যে মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহার বাড়ছে। মানুষ টাকা খরচ করে লিমিটেড ভাবেই ব্যবহার করতে হয় ইন্টারনেট। কিন্তু ব্রড ব্যান্ড সংযোগ চালু হওয়ায় এটি আরও ছড়িয়ে পড়ছে।

বর্তমানে রাজধানী ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরগুলোতে ব্রড ব্যান্ড সংযোগ হওয়ায় আনলিমিটেডভাবে ব্যবহার করা যায় ইন্টারনেট। ঘরে ঘরে অনলাইন ব্যবস্থা চালু হওয়ায় যোগাযোগের ক্ষেত্রে আমুল পরিবর্তন এসেছে। এই আমুল পরিবর্তনই যেন কাল হয়ে দাঁড়াচ্ছে শিশুদের জন্য। ব্রড ব্যান্ড সংযোগ চালু হওয়ায় বাসা বাড়িতে শিশুরা দিন রাত শুধু ইন্টারনেটেই পড়ে থাকেন।

ধানমন্ডি এলাকার বাসিন্দার বিলকিস আক্তার বলেন, আমার ছেলে রাজু। সে সবে মাত্র তৃতীয় শ্রেণীতে উঠেছে। আমি আর তার বাবা ইন্টারনেটে তেমন বেশি বুঝি না। কিন্তু আমার ছেলে সবই বুঝে। আগে মাঠে গিয়ে খেলা করতো। কিন্তু মোবাইল কিনে দেওয়ার পরে আর মাঠে যায় না। স্কুল থেকে ফিরে বাসাই বসে থাকে। সারা দিন মোবাইল নিয়ে তার ব্যস্ততা। ইন্টারনেট সহজ মূল্য হওয়া শিশু ও কিশোররা অনলেইনে ঝুঁকে পড়ছে। মোবাইলে শিশুরা বিভিন্ন গেইম, ইউটিউবে ভিডিও দেখে থাকেন। তবে অনলাইন শিশুদের জন্য একটি ভালো দিক থাকলেও বেশি ভাগই রয়েছে খারাপের দিক। তাছাড়া শিশুরা ও কিশোররা সারাদিন ফেইসবুকে পড়ে থাকেন। বর্তমানে কিশোররা প্রয়োজনীয় তথ্যপূর্ণ ওয়েবসাইট বাদ দিয়ে খারাপ সাইটগুলোতে প্রবেশ করছে বলে মনে করেন অভিভাবকরা। অনলাইনে শিশুর আসক্ত নিয়ে এরই মধ্যে অভিভাবকদের মাঝে হতাশা দেখা দিয়েছে।

তবে শিশুরা কখন কী করছেন, কার সাথে মিশছেন তা খেয়াল রাখার জন্য অভিভাবকদের পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: