বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
মিয়ানমার তাদের লোকদের ফেরত নিতে রাজি হয়েছে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   রাজশাহীতে মা-ছেলে হত্যায় আ.লীগ নেতাসহ ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড  » «   অবশেষে সেই বাংলাদেশি যুবকের লাশ ফেরত দিল বিএসএফ  » «   নিউইয়র্কে হবে শেখ হাসিনা-বিল গেটস বৈঠক  » «   ‘এবার এক দেশ, এক দলের’ ইঙ্গিত বিজেপি সভাপতির  » «   রাতে আটক, ভোরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত  » «   জগন্নাথপুরে র‌্যাবের জালে আটকা পড়লেন ভূয়া ডাক্তার  » «   এবার ভিসি ফারজানার বিরুদ্ধে ভয়াবহ অভিযোগ  » «   রংপুর-৩ উপনির্বাচন: লাঙ্গলের ঘাঁটিতে আসিফের দিকেই ভোটের হাওয়া  » «   রিফাত হত্যা: যা বললেন সেই রিকশাচালক  » «   চতুর্থ ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   সুনামগঞ্জে অজ্ঞাতনামা যুবকের মরদেহ উদ্ধার  » «   বন্দরবাজার থেকে ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আফগান প্রেসিডেন্টকে লক্ষ্য করে বোমা হামলা, নিহত ২৪  » «   বিভাগীয় শহরে হচ্ছে পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসাকেন্দ্র  » «  

অতিবৃষ্টিতে টেকনাফে পাহাড় ধস, ২ শিশুর মৃত্যু



নিউজ ডেস্ক:: অতিবৃষ্টির ফলে কক্সবাজারের টেকনাফে পাহাড় ধসে দুই শিশু নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছে। এছাড়া শত শত পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) ভোরে টেকনাফ পৌরসভার পুরাতন পল্লান পাড়া এলাকায় এ পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। নিহতরা হচ্ছে একই এলাকার রবিউল আলমের ছেলে মেহেদি হাসান (১০) ও মো. আলমের মেয়ে আলিফা আলম (৫)।

উপজেলা সিপিপি (ঘুর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি) স্বেচ্ছাসেবক ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা হতাহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুইজনকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবিউল হাসান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

তিনি জানান, অতিবৃষ্টির ফলে পাহাড় ধসে হতাহতের এ ঘটনা ঘটেছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এছাড়া উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পানিবন্দী ও ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোতে তাৎক্ষনিক শুকনা খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ইউএনও জানান, পাহাড় ধস ও পানিবন্দী পরিবারগুলোর জন্য টেকনাফ বার্মিজ প্রাইমারি ও পাইলট হাই স্কুলে জরুরি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

সিপিপি সদস্যরা পাহাড়ের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা হতে লোকজনকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যেতে কাজ করছেন বলে জানান উপজেলা সিপিপি কর্মকর্তা আবদুল মতিন।

এদিকে অতিবৃষ্টিতে টেকনাফ পৌরসভার অলিয়াবাদ, কলেজ পাড়া, জালিয়াপাড়া, সদর ইউনিয়নের গোদারবিল, শীলবুনিয়া পাড়া, হ্নীলা ইউনিয়নের লেদা, রঙ্গিখালীসহ বিভিন্ন নিচু এলাকা প্লাবিত হয়ে শত শত পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল আলম প্লাবিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

এদিকে টেকনাফ আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা শফিউল আলম জানান, সোমবার রাত ৯টা হতে মঙ্গলবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ৩৩৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। যা চলতি বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড। বুধবার পর্যন্ত অতি ভারী বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: